বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯, ০৭:৪৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মহম্মদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি বিকো সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুন নবী মাগুরায় সেই শিক্ষক ও সভাপতির দূর্নীতি দেখার কেউ নেই! মাগুরায় মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসের দূর্নীতি নিয়ে তোলপাড়! (পর্ব-১) মাগুরায় চাঞ্চল্যকর অধ্যক্ষ হত্যাকান্ড মূল হোতারা এখনও ধরা ছোয়ার বাহিরে মাগুরায় অধ্যক্ষ আবদুর রউফ হত্যার আসামীরা কোথায়? মাগুরায় প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির স্কুল হয় জলসা ঘর মাগুরায় পান্নু চেয়ারম্যানের হাতুড়ীর আঘাতে অধ্যক্ষ আব্দুর রউফের মৃত্যু মাগুরায় মহিলা মাদ্রাসায় ক্লাব বানানোকে কেন্দ্র করে প্রতি পক্ষের হামলায় সুপারের মৃত্যু প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ব্যালট বাক্স শিক্ষার্থীদের দেখিয়ে ভিডিও, পরে ভোট
নবীগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠছে কিন্ডার গার্টেন স্কুল সরকারি স্কুলে কমছে ভর্তির হার

নবীগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠছে কিন্ডার গার্টেন স্কুল সরকারি স্কুলে কমছে ভর্তির হার

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি॥ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলা জুড়ে চলছে কিন্ডার গার্টেন স্কুলের জমজমাট ব্যবসা। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নামে বেনামে গড়ে ওঠেছে প্রায় শতাধিক কিন্ডার গার্টেন স্কুল। অধিকাংশ কিন্ডার গার্টেনই পরিচালিত হচ্ছে আবাসিক ভবনে। বেশিরভাগে স্কুলের নেই স্থায়ী ভবন, নেই শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ। অপ্রশিক্ষন প্রাপ্ত শিক্ষকদের দিয়ে চলছে কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলো। এসব কিন্ডার গার্টেনের বেশিরভাগ শিক্ষকই এস এস সি বা এইচ এস সি পাস। কলেজ পড়–য়া  শিক্ষার্থীরা অল্প বেতনে পার্ট টাইম চাকরী করেন ওই স্কুলগুলোতে। নেই উচ্চতর কোন ডিগ্রিও। সরকারি, এমপিওভুক্ত উচ্চ বিদ্যালয় ও  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে বেশিরভাগ স্কুলই। অভিভাবকদের মনোরঞ্জনে স্কুলে শিক্ষার্থী ভর্তি করিয়ে অতিরিক্ত ভর্তি ফি, স্কুলের বেতন, গাড়ি ভাড়া, চটকদার বিজ্ঞাপন, সরকারি বইয়ের পাশাপাশি অতিরিক্ত বই দিয়ে প্লে-গ্রুপ থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়িয়ে মুখোরোচক বাণী দিয়ে অভিভাবকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছেন হাজার হাজার টাকা। উপজেলা সদর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও শহরের মত বানিজ্যিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কিন্ডার গার্টেন স্কুল।  সংশ্লিষ্ট প্রাথমিক শিক্ষা ও মাধ্যমিক শিক্ষা কার্যালয়ও এদের অনেকের নেই কোন পরিসংখ্যান, পাশাপাশি নেই পাঠদানের অনুমতিও। গলাকাটা ভর্তি ফি’সহ উচ্চ হারে বেতন পরিশোধে অভিভাবকেরা হিমশিম খাচ্ছেন। সন্তানের উচ্চ শিক্ষার আশায় স্থানীয় এসব কিন্ডার গার্টেনে সন্তানদের ভর্তি করাতে ঝুঁকে পড়ছেন। ফলে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে ছাত্রছাত্রী দিন দিন কমে যাচ্ছে। কিন্ডার গার্টেন কর্তৃপক্ষ নানা অজুহাতে শিক্ষার্থী’সহ অভিভাবকের গলা কাটছে সুকৌশলে। পাশাপাশি বিভিন্ন এনজিওর স্কুলতো আছেই। কিন্ডার গার্টেনের বাইরের কোন বই খাতা আনুসঙ্গিক জিনিসপত্র ব্যবহার গ্রহণযোগ্য নয় বলেও অভিযোগ ওঠেছে। ওখান থেকেই চড়া দামে এসব কিনতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এদিকে দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত্বের পরিবারের এসব কিন্ডার গার্টেনে পড়ার সুযোগ পায় না। দৃশ্যত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামে এসব কিন্ডার গার্টেন সমাজে ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য সৃষ্টি করছে। ফলে বর্তমান সরকারের সার্বজনীন শিক্ষা কমসূচী “সবার জন্য শিক্ষা” বাধ্যতামূলক মহা সংকটে পড়ছে। এসব দেখার জন্য যেন কেউ নেই। অভিযোগ রযেছে, হাতে গোনা কয়েকটি কিন্ডার গার্টেন বাদে বাকিগুলোতে জাতীয় সঙ্গীত এমনকি জাতীয় পতাকাও উত্তোলন করা হয় না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 crimekhobor.Com
Theme Download From ThemesBazar.Com